হস্তমৈথুন এর উপকারিতা কি? হস্তমৈথুন এর সুফল গুলো কি কি তা জানতে চাই?

হস্তমৈথুন এর উপকারিতা কি?

হস্তমৈথুন এর সুফল গুলো কি কি তা জানতে চাই?

Add Comment
  • 2 উত্তর(র)

      ভাই, হস্তমৈথুন  এর অনেক উপকারিতা আছে। হস্তমৈথুন এর সুফল গুলো কি কি তা নিচে লেখার চেষ্টা করছি।

      হস্তমৈথুন  করার কারণে ছেলেরা যেসব উপকার পাবে তা হচ্ছে…

      (১) বিয়ে করতে পারবে না। সুতারাং আপনি বউ এর ঘ্যানঘ্যানই থেকে চিরতরে রেহায় পাবেন।

      (২) বিয়ে করলেও স্ত্রীর হক আদায় করতে পারবে না কারন Sparm এ শুক্রাণু রয়েছে তা শেষ হয়ে যাবে । যার ফলে সন্তানের বাবা হতে পারবে না ।

      (৩) Panis অস্বাভাবিক মোটা /চিকন হয়ে যাবে । Panis আর ধারাবে না ।

      (৪) Sparm একেবারে পাতলা হয়ে যাবে যার ফলে প্রসাব করতে গেলে আগে/পরে Sparm বের হবে ।

      (৫) Panis লুজ হয়ে যাবে যার ফলে দৌড় দিলেও প্রস্রাব বের হয়ে আসবে । সুতারাং কষ্ট করে প্রসাব করতে টয়েলেটে যেতে হবে না।

      (৬) আর অতিরিক্ত করার কারণে সর্বশেষ যেটা হবে প্রস্রাব করতে গেলে আর প্রস্রাব আসবে না বরং রক্ত আসবে ।

      (৭) panis  শক্ত হওয়ার রক মরে যাই এবং নিস্তেজ হয়ে যায়|

      (৮) panis সহবাস করার ক্ষমতা সম্পূর্ণরূপে হারিয়ে ফেলবেন,স্ত্রীর সাথে সহবাস করতে পারবেন না লিঙ্গ শক্ত হবে না|

      (৯) অন্ডকোষ ঝুলে যাবে এবং panis পচা কলার মত হয়ে যাবে|অল্প বয়সে panis স্বাভাবিক আকার দেখা দিবে|panis মরে গেছে বলে মনে হবে|

      (১০) Panis মধ্যে রগ ভেসে উঠবে এবং ভিতরের রগগুলো অস্বাভাবিক হয়ে যাবে, লিঙ্গ বয়স্ক মানুষের মত ঝুলে থাকবে|

      (১১) প্রসাব এবং বীর্যপাতে বেগ কমে যাবে|panis সব সময় নিস্তেজ এবং অস্বাভাবিক ছোট হয়ে থাকবে|

       

      হস্তমৈথুন  করার কারণে মেয়েরা যেসব উপকার পাবে তা হচ্ছে…

      (১) বিয়ের পর স্বামী সন্দেহ করবে যে বিয়ের আগে কোন পুরুষের সাথে শারীরিক সম্পর্ক করছে হয়তো ।  কেননা এর দ্বারা virgin নষ্ট হয়ে যায় ।

      (২) Period অস্বাভাবিক হয়ে যাবে ।

      (৩) বন্ধ্যা হয়ে যাবার সম্ভাবনা রয়েছে । তাহলে কষ্ট করে সন্তান লালন পালনের কোন ঝামেলা পোহাতে হবে না।

      (৫) Glans লুজ হয়ে যাবে যার ফলে স্বামীকে তৃপ্তি দিতে পারবে না ।

      (৬) আর ছেলে/মেয়ের উভয়ের যেই সমস্যা গুলো হবে তা হলো : মাথ্যা এবং কমরে ব্যাথা করবে ।

      (৭) অল্প বয়সে যৌবন শেষ হয়ে যাবে ।

      (৮) চেহারার সৌন্দর্য নষ্ট হয়ে যাবে ।

      (৯)  রক্ত উৎপাদনের যেই মেসিন রয়েছে তা দূর্বল হয়ে যাবে । ফলে রক্ত উৎপাদন কমে যাবে । কিডনি দূর্বল হয়ে যাবে ।  প্রস্রাবে সমস্যা হবে
      মোটকথা শরীরের প্রত্যেকটা অঙ্গ দূর্বল হয়ে পড়বে ।

      (১০) Absence of sex power (যৌন দূর্বলতা ) এই রোগে ভুগতে হবে ।

       

      আশা করি বুঝতে পেরেছেন। ধন্যবাদ প্রশ্নের জন্য।

      Brong উত্তর করা হয়েছে
      Add Comment

        হস্তমৈথুন ! লজ্জা নয়, জানতে হবে । তরুণ প্রজন্মের ধ্বংসের হাত থেকে বাচার জন্য অত্যাধিক একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়…।
        বিয়ের আগে না জানার কারণে ছেলে/মেয়ে এক বদ অভ্যাসে জড়িয়ে পরে ।

        আমাদের স্কুল কলেজ গুলোতে সব বিষয়ে বলা হলেও এসব বিষয়ে বলা হয় না বললেই চলে । তাই এই বিষয়ে না জানার কারণে অনেক ছেলে মেয়ে নিজের জীবনকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছে । Calculation করে দেখা গেছে বর্তমানে অবিবাহিত ছেলেদের মধ্যে ৮০% আর মেয়েদের মধ্যে ৬৫% এই বদ অভ্যাসে জড়িত । যেটা কে আরবিতে বলা হয় নিকাহ বিল ইয়াদী ( অর্থাৎ হাতের সাথে বিবাহ করা ) ।

        ইংরেজিতে বলা হয় Masturbation আর শুদ্ধ বাংলায় বলা হয় হস্তমৈথুন ।
        যেটাকে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হারাম বলেছেন এবং এর শাস্তি ভয়ানক হওয়ার কারণে কিয়ামতের দিন আঙ্গুলের পেট গুলো থেকে বাচ্চা অর্ধেক বের হয়ে থাকবে । বাকিটা ফেরেস্তারা টেনে বের করবেন । আর হস্তমৈথুন হারাম এবং এটা একটা কবিরা গুনাহ|এবং এটা একটা গোপন পাপ|
        রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম বলেছেন আমার উম্মতের মধ্যে এমন কিছু লোক আছে যারা অনেক আমল করে আল্লাহর নিকট আসবে কিন্তু তাদেরআমল কে মূল্যায়ন করা হবে না কারণ তারা গোপনে পাপ করতেএবং তাদের আমল কে ধুলাবালির নেই উড়িয়ে দেয়া হবে|

        অন্য আর জায়গায় বলা হয় এটার কারণে যে Sparm বাহির হয় ,, কোন কোন ডাক্তার বলে থাকেন একবারের Sparm এ বিশ লক্ষ শুক্রাণু থাকে । সেই শুক্রাণু গুলো থেকে একটি ডিম্বাণুতে গিয়ে বাচ্চা জন্ম হয় । তো এই অপচয়ের কারনে আল্লাহ তা’আলা বলবেন যে, এই শুক্রাণু গুলোর জীবন দাও ! যখন দিতে পারবে না তখন তাকে কঠিন শাস্তি দেওয়া হবে । এটাতো গেলো মৃত্যুর পরের কথা কিন্তু কেউ যদি ছাড়তে না পারে তাহলে তাকে দুনিয়াতে অনেক পস্তাতে হবে ।

        বিঃদ্রঃ-রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাই সালাম বলেছেন যখন কোন জাতির মধ্যে অশ্লীলতা বৃদ্ধি পায় তখন এমন রোগের আবির্ভাব ঘটেছে পূর্বপুরুষদের ছিল না|
        [বোখারী]
        একটু গভীরভাবে চিন্তা দেখবেন আমাদের মত এর আগে আমাদের পূর্বপুরুষের কেউ এভাবে হস্তমৈথুন করতেন না|যেহেতু আমরা জেনে না জেনে ভুল কাজ করে ফেলেছি এখন আমাদের উচিত আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাও|

        একটা জিনিস মনে রাখবেন আল্লাহর কাছে চাওয়ার মত চাইলে সবই পাওয়া যায়|আর আল্লাহ ছাড়া এখন থেকে কেউ উদ্ধার করতে পারবে না|এখন আমাদের উচিত সব সময় আল্লাহর কাছে বেশি বেশি দোয়া করা আল্লাহ যেন আমাদের যৌবন শক্তি ফিরিয়ে দেন|

        সব সময় এস্তেগফার করতে থাকুন এবং আল্লাহর কাছে নিজের এবং সকল মুসলিম ভাই-বোনদের জন্য ক্ষমা চাই, তাহাজ্জুতের নামাজ পড়ে নিজের দোষ গুলো আল্লাহর কাছে তুলে ধরো,ইনশাল্লাহ আল্লাহ তায়ালা সবাইকে ক্ষমা করে দিবেন এবং সুস্থ করে দিবেন|

        মুসলিম ভাই ও বোনদের মারাত্মক ক্ষতি থেকে বাঁচার জন্য এই লেখা । আল্লাহর কাছে দোয়া করি সবাই যাতে এই ভয়ানক গোনাহ্ থেকে বেঁচে থাকতে পারে । আর যারা যুক্তি উপস্থাপন করে হস্তমৈথুনকে বৈধতা দিতে চায় বা বৈধ করতে চায়, তাদের থেকে ১০০ হাত দূরত্ব বজায় রাখবেন । কারন এরা নিজেরাও ক্ষতির মধ্যে নিমজ্জিত এবং আপনাকেও ক্ষতির সম্মুখীন করতে চায় । এরা নিজেরাও গোমরাহ/বিপদগ্রস্ত, আপনাকেও তাই করে ছাড়বে । কারন এরা নিজেরাই হস্তমৈথুন করে বিধায় সমাজে লোকদের বলে বেড়ায় এটা বৈধ ! আস্তাগফিরুল্লাহ ।
        তাই এ সমস্ত লোকদের সাথে চলাফিরা বা উঠাবসা করা যাবেনা ।

        আল্লাহ তা’আলা আমাদের সকল মুসলিম ভাই বোনদেরকে ইসলামের সঠিক বুঝ দান করুন এবং এই গোনাহ্ থেকে বেঁচে থাকার তৌফিক দান করুন ।
        আমীন !

        অতীতে যা হবার হয়ে গেছে, এখন তোর চিন্তা করে লাভ নেই, কিভাবে মুক্তি পাওয়া যায় আসুন কুরআন হাদিসের আলোকে জানি,

        আসলেই সত্যি কথা হলো যে একক ভাবে রোগের কোন নির্দিষ্ট দোয়া নেই|আল্লাহতালা যে সকল জিনিস কে সকল রোগের শেফা হয়েছে কুরআন ও হাদিসের আল্লাহকে খুশি করে অলৌকিক ভাবে এখান থেকে আরোগ্য নিতে হবে|

        পবিত্র কুরআনে সূরা ফাতিহা ও এবং মধুকে সকল প্রকার রোগ মুক্তির শেফা বলা হয়েছে|আর হাদিসে কালিজিরা কে সকল রোগ মুক্তির ঔষধ বলা হয়েছে|

        এখন আমাদের কর্তব্য হচ্ছে যে যেগুলা পড়া যায় সেগুলোর উপর আমল করা এবং যেগুলা সেবন করা যায় সেগুলো সেবন করে আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাও|

        ইনশাল্লাহ আল্লাহ তাআলা সবাইকে এ রোগ থেকে আরোগ্য দান করুক এবং সবাইকে ক্ষমা করবেন|

        আজি হোক আপনার সেই দিন যেদিন থেকে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ নিয়মিত পড়বেন, এখন মাঝে মাঝে পড়েন আবার মাঝে মাঝে পড়েন না|তোওবা করে ফিরে আসেন আল্লাহর দিকে|

        আপনি কেন বুঝছেন না যে আল্লাহ তায়ালার কাছে আসলে সবকিছু ফিরে পাওয়া যাবে|চলুন সবাই দোয়া করি এবং আল্লাহর নিকট ক্ষমা প্রার্থনা করে ফিরে আসেন|

        হে আল্লাহ হে আল্লাহ হে আল্লাহ সবাই আমরা মন থেকে বলি ইনশাল্লাহ আমাদের সকল মুসলিম ভাই ও বোনদের রোগ ও অপরাধ ক্ষমা করে দিন এবং সবাইকে সুস্থতা দান করেন|আল্লাহ তা’আলা সকল মুসলিম ভাই ও বোনদের অলৌকিক ভাবে আরোগ্য দান করুক|

        আমীন সুম্মা আমীন

        Brong উত্তর করা হয়েছে
        Add Comment
      • আপনার উত্তর

        By posting your answer, you agree to the privacy policy and terms of service.